সেই রিকশাচালককে খুঁজে না পাওয়ায় সুলতানের বিরুদ্ধে এখনো মামলা হয়নি

সেই রিকশাচালককে খুঁজে না পাওয়ায় সুলতানের বিরুদ্ধে এখনো মামলা হয়নি

(জাগো নিউজ ডেস্ক)ঘটনার ১০ দিন অতিবাহিত হলেও রাজধানীল বংশালে নির্যাতনের শিকার রিকশাচালকে এখনো খুঁজে পায়নি পুলিশ। তাকে খুঁজে না পাওয়ায় নির্যাতনকারী সুলতানের বিরুদ্ধে এখনো মামলা দায়ের হয়নি।

এদিকে ঘটনার দিনই (৪ মে) নির্যাতনকারী সুলতানকে আটক করে পুলিশ। আটকের পর সাধারণ ডায়েরি (জিডি) মূলে রিকশাচালককে খুঁজে না পাওয়া পর্যন্ত সুলতানকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন জানিয়ে আদালতে পাঠায় বংশাল থানা পুলিশ। এরপর থেকে তিনি কারাগারে আটক রায়েছেন।


এর মধ্যে তিনদফা তার জামিন নামঞ্জুর হয়েছেবংশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহিন ফকির বৃহস্পতিবার (১৩ মে) জাগো নিউজকে বলেন, ‘বংশালে রিকশাওয়ালাকে নির্যাতনকারী সুলতানকে আমরা আটক করেছি। তার বিরুদ্ধে অভিযোগকারী না থাকায় তাকে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) মূলে আদালতে পাঠিয়ে আটক রাখার আবেদন করেছি। আমরা এখন রিকশাচালককে খুঁজছি। তাকে খুঁজে পেলে তার অভিযোগের ভিত্তিতে সুলতানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেবো।’

বুধবার (১২ মে) ঢাকার মহানগর হাকিম দেবদাস চন্দ্র অধিকারীর আদালতে রিকশাচালককে নির্যাতনের অভিযোগে আটক সুলতান আহমেদের আইনজীবী জামিনের আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারক তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেনএর আগে গত ৯ মে অভিযুক্তের আইনজীবী জামিন চেয়ে আবেদন করেন। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষ জামিনের বিরোধিতা করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন।


গত ৫ মে সুলতানকে আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় ভুক্তভোগী রিকশাচালককে খুঁজে না পাওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন বংশাল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আলী রেজা মামুন। সেবারও আসামিপক্ষ জামিন আবেদন করেন এবং রাষ্ট্রপক্ষ বিরোধিতা করেন। শুনানি শেষে আদালত জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।গত ৪ মে একজন সংবাদকর্মী বাংলাদেশ পুলিশের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইংকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও লিংক পাঠান।

ভিডিওতে দেখা যায়, ৪ মে দুপুর দেড়টার দিকে বংশালে এক ব্যক্তি এক রিকশাচলককে থাপ্পড় মারছেন ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করছেন। নির্যাতনের এক পর্যায়ে রিকশাচলককে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন এবং জ্ঞান হারান। বিষয়টি দেখতে পেয়ে পাশ থেকে লোকজন এগিয়ে গিয়ে ওই রিকশাচলককে উদ্ধার করে।


ভিডিওটি দেখামাত্র মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইং বংশাল থানার ওসি মো. শাহীন ফকিরকে এ বিষয়ে নির্দেশনা দেন। নির্যাতনকারীকে খুঁজে বের করে দ্রুত আইনের আওতায় আনতে বলেন তিনি। সেই পরিপ্রেক্ষিতে অল্প সময়ের ব্যবধানে ওই ব্যক্তিকে আটক করে বংশাল থানা পুলিশ

Please Share This Post in Your Social Media




প্রধান কার্যালয়ঃ স্কুল মার্কেট,২য় তলা, কচুয়া বাজার,সখীপুর, টাঙ্গাইল। মোবাইলঃ 01518301289; 01708067997 ইমেইলঃ Kachuaonlinenews@gmail.com ©TangailNews24 Is A Part Of KachuaOnlineNews© © All rights reserved © 2021 Tangail News
Design BY NewsTheme