সখীপুরে নৃত্যশিল্পীর চুল কেটে মুখে কালি মেখে দেওয়া মামলার আসামি ডিএম সুপ্ত গ্রেপ্তার

টাঙ্গাইলের সখীপুরে বাদী মাথার চুল কেটে মুখে কালি মাখানাের মামলার ২ নম্বর আসামি ডিএম সুপ্তকে (১৬) পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। গতকাল শুক্রবার গভীর রাতে এক আত্মীয়ের বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আজ শনিবার বেলা ১১টায় পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে তাকে টাঙ্গাইল আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার হওয়া আসামি ডিএম সুপ্তর বাবা ডিএম শরীফুল ইসলাম শফী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। তিনি উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন।

তার বাড়ি উপজেলার নলুয়া গ্রামে। ডিএম সুপ্ত ২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

এদিকে মামলা তুলে না নেওয়ায় বাদীর মুখে কালি মাখানাের অভিযােগ শিরােনামে গতকাল বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে সংবাদট প্রচার হয়।

পর্নোগ্রাফি আইনে করা মামলা তুলে না নেওয়ায় আসামিরা বাদীর মাথার চুল কেটে মুখে কালি মেখে দেয়। এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার রাতে মামলার বাদী নৃত্যশিল্পী সুমন সখীপুর থানায় সুপ্তসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করেন।

পুলিশ সূত্র জানায়, গত ৬ আগস্ট মামলার আসামিরা সুমনকে (১৯) জোরপূর্বক ধরে নিয়ে যায়। এরপর তারা তাকে মারধর ও বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করে। ওই ঘটনায় গত ৮ আগস্ট স্থানীয় স্টার বয়েজ ক্লাবের সদস্য শরীফুল ইসলাম ওরফে কালা শরীফসহ (২২) পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন ওই তরুণ। ওই তরুণ অভিযােগ করেন, ওই মামলা তুলে নিতেই গত বুধবার রাতে তার ওপর আবার নির্যাতন চালানাে হয়েছে।

মামলার বাদী সুমন জানায়, পাঁচজন মুখােশধারী সন্ত্রাসী বাড়ির সামনে থেকে তাকে ধরে মােটরসাইকেলে তুলে একটি বনের ভেতর নিয়ে যায়। সেখানে আগের মামলার প্রধান আসামি শরীফুল ইসলাম, সুপ্তসহ চারজন অপেক্ষা করছিলেন। সেখানে ওই তরুণ তাঁরা মামলা তুলে নিতে হুমকি দেন। কিন্তু মামলা তুলে নিতে রাজি না হওয়ায় তারা ওই তরুণের মাথার চুল কেটে মুখে কালি মেখে দেন।

সখীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আজিজুল ইসলাম আজ শনিবার বেলা ১১টায় বলেন, আসামিকে পাঁচদিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানাে হয়েছে। গ্রেপ্তার হওয়া সুপ্ত আগের মামলার আসামি। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

error: Content is protected !!