সখীপুরে নৃত্যশিল্পীকে আবারো উলঙ্গ করে মারধরের অভিযোগ

টাঙ্গাইলের সখীপুরে মামলা তুলে না নেওয়ায় টাঙ্গাইলের সখীপুরের নৃত্যশিল্পীকে আবারও উলঙ্গ করে মারধর করা হয়েছে।

বুধবার রাতে নৃত্য শিল্পী সুমন আমমেদের কাহারতা বাসার সামনে থেকে তুলে বনের ভিতরে নিয়ে চোখ মুখ বেধে শারিরীকভাবে নির্যাতন ও তার মাথার চুল কেটে এবং তার মুখে কালি দিয়ে বিবর্ণ করে দেয়।

রাতে সখীপুর থানা পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করলে কোন প্রদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। এতে তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। তাই প্রশাসনসহ সকলের কাছে প্রাণ ভিক্ষা চেয়েছেন তিনি।

সুমন আহমেদ জানান, বুধবার রাতে সখীপুরের বাসার সামনে থেকে ৫/৬ জন চোখ মুখ বাধা সন্ত্রাসীরা তাকে তুলে নিয়ে বনের ভিতের নিয়ে যায়। বৃহস্পতিবারের মধ্যে মামলা তুলে নিতে চাপ প্রয়োগ করা হয়। মামলা তুলতে রাজি না হওয়ায় কালা শরীফ, সুপ্তসহ ৫/৬ আসামী তাকে মারধর করে। তাদের মধ্যে একজন মাথায় প্রশ্রাব করে দেয়। অন্যজন কাচি ও ব্লেড দিয়ে তার মাথার চুল এলোমেলো করে কেটে ও তার মুখে কালি দিয়ে বিবর্ণ করে দেয়।

পরে রাত তিনটার দিকে তাকে বাড়ির সামনে এসে ছেড়ে দেয় সন্ত্রাসীরা।

থানায় গিয়ে পুলিশকে বিষয়টি জানালো পুলিশ কোন প্রয়োজনীয় প্রদক্ষেপ গ্রহণ করেনি।সুমন আহমেদ বলেন, ‘পুলিশ নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতি দিলেও আমাকে কোন নিরাপত্তা দিতে পারেনি। আমাকে বারবার উলঙ্গ করে কালা শরীফ, সুপ্তসহ আসামীরা মারধর করছে।

মারধরের পর কালা শরীফ, সুপ্তসহ আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ায়। বিষয়টি পুলিশকে জানালেও পুলিশ কোন প্রয়োজনীয় প্রদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। আমি পুলিশ প্রশাসনসহ সকলে কাছে প্রাণ ভিক্ষা চাই। আমি নিরাপত্তা ও আসামীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আমির হোসেন জানান, ইতিমধ্যে দ্বিতীয়বার এ ঘটনার জন্য মামলা নেওয়া হচ্ছে। আসামীদের গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

error: Content is protected !!