সখীপুরে গণধর্ষণের ঘটনায় সাবেক স্বামীসহ চারজনকে আসামি করে মামলা

টাঙ্গাইলের সখীপুরে এক যুবক তার বন্ধুদের নিয়ে পরিকল্পিতভাবে সাবেক স্ত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণের অভিযােগ পাওয়া গেছে।

গতকাল বুধবার রাতে ওই নারী বাদী হয়ে সাবেক স্বামীসহ চারজনকে আসামি করে গণধর্ষণের মামলা করেছেন। মেয়েটির ডাক্তারি পরীক্ষা জন্য আজ বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে (ওসিসি) পাঠানাে হয়েছে। মামলার আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযানে নেমেছেন।

জানা যায় মামলার প্রধান আসামি ওই নারীর সাবেক স্বামী মনির হােসেন (২৫)। তার বাড়ি উপজেলার সিলিমপুর গ্রামে। তিনি পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দুই বছর আগে ওই নারীর মনির হােসেনের সঙ্গে বিয়ে হয়। মাস ছয়েক সংসার করার পর বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। বছর খানেক আগে ওই নারী আরেকটি বিয়ে করেন। মনিরকে ছেড়ে আরেকটি বিয়ে করায় প্রতিশােধ নিতে নানা পরিকল্পনা করে মনির। এক পর্যায়ে দুই মাস আগে মনির ওই নারীর মুঠোফোন সংগ্রহ করে ফোন দেয়। পুনরায় বিয়ে করার জন্য ফোনে প্রস্তাব দেয়। এক পর্যায়ে ওই নারী মনিরের প্রেমের ফাঁদে পড়েন।

মনির গত সােমবার রাতে ওই নারীকে বিয়ে করার কথা বলে স্বামীর বাড়ি থেকে ভাগিয়ে এনে সখীপুর পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের এক বন্ধুর বাড়িতে নিয়ে তােলেন। রাতে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে চার বন্ধু মিলে সারারাত পালাক্রমে ওই নারীকে ধর্ষণ করে। ঘটনার দুইদিন পর গতকাল বুধবার রাতে বর্তমান স্বামীকে নিয়ে থানায় এসে গণধর্ষণের মামলা করেন।

মেয়েটি পুলিশকে জানায়, সে সাবেক স্বামীর খপ্পরে পড়েছিল। তালাক দিয়ে অন্যত্র বিয়ে করায় এর চরম প্রতিশােধ নিতে মনির তার সঙ্গে অভিনয় করেন। পরিকল্পিতভাবে বন্ধুদের আগে সে প্রস্তুত করে রেখেছিল।

সখীপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এ এইচ এম লুৎফুল কবির আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে বলেন, এটা একটা পরিকল্পিত গণধর্ষণ। সাবেক স্ত্রীর ওপর প্রতিশােধ নিতেই এ ঘটনা ঘটানাে হয়েছে। দুইজন আসামি আমাদের নজর বন্দিতে রয়েছেন।

খুব শীঘ্রই তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

error: Content is protected !!