অবশেষে ভুয়া রিপোর্টের দায় স্বীকার করল সাবরিনা-আরিফ

DR.sabrina Arif

করোনা পরীক্ষার নামে জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া জেকেজির চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফ চৌধুরীকে মুখোমুখি জিজ্ঞাসাবাদ করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে ভুয়া রিপোর্টের বিষয়ে তারা স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছেন ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার আব্দুল বাতেন।

তিনি জানান, ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরীর ৩ দিনের রিমান্ড শেষ হয়েছে আজ। শুক্রবার আদালতে নিয়ে আবারো রিমান্ডের আবেদন করা হবে। করোনার ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগে করা মামলায় গত রোববার গ্রেপ্তার করা হয় ডা. সাবরিনাকে। পরদিন সোমবার তার তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত, বেসরকারি সংস্থা জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনার প্রতিষ্ঠান জেকেজির বিরুদ্ধে করোনার ১৫ হাজার ৪৬০টি ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগ আনে পুলিশ।

error: Content is protected !!