পাঠাওয়ের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ফাহিম সালেহ নিউইয়র্কে খুন

শেয়ার রাইড পাঠাওয়ের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ফাহিম সালেহ যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে খুন হয়েছেন। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার বিকেলে ম্যানহাটনের নিজ ফ্ল্যাট থেকে ফাহিমের ক্ষতবিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করা হয় বলে জানিয়েছে নিউ ইয়র্ক পুলিশ।

গত সোমবারের পর থেকে যোগাযোগ না থাকায় ফাহিমের অ্যাপার্টমেন্টে যান তার বোন। সেখানে গিয়ে ভাইয়ের মরদেহ দেখতে পান তিনি। সিসিটিভির ফুটেজে দেখা যায়, সোমবার আরেক ব্যক্তির সাথে বাসার লিফটে উঠছেন ফাহিম। ওই ব্যক্তি তখন মাস্ক ও টুপি পরা ছিলেন বলে জানিয়েছে নিউইয়র্ক পুলিশ।

ফ্ল্যাটে ঢোকার পরপরই ফাহিমকে খুন করা হয় বলে ধারণা পুলিশের। খুনিকে ধরতে অভিযান শুরু হয়েছে। হত্যার কারণ এখনও জানা যায়নি।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফাহিম সালেহর বোন পুলিশকে ফোন করে জানান, তিনি তাঁর ভাই ফাহিম সালেহর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছেন না। পুলিশকে তিনি একটু খোঁজ নিতে অনুরোধ করেন। বোনের ফোন পেয়েই ওই অ্যাপার্টমেন্টে একা থাকা ফাহিম সালেহকে খুঁজতে যায় পুলিশ। সেখানে গিয়ে তাঁর খণ্ডিত লাশ উদ্ধার হয়।

গত বছর ম্যানহাটনের এই বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্ট কেনেন ফাহিম সালেহ। পাঠাওয়ের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ছাড়াও নাইজেরিয়া এবং কলম্বিয়াতেও এমন আরও দুটি রাইড শেয়ারিং অ্যাপ কোম্পানি আছে ফাহিমের।

এনওয়াইপিডির বরাত দিয়ে নিউইয়র্কের ডেইলি নিউজ পত্রিকা জানিয়েছে, সোয়া দুই মিলিয়ন ডলার মূল্যের অ্যাপার্টমেন্টে পাওয়া ক্ষতবিক্ষত লাশটি ফাহিম সালেহর। বাংলাদেশে পাঠাও কোম্পানিতে নিজের শেয়ার বিক্রি করে নাইজেরিয়াতে একই ধরনের ব্যবসা শুরু করেছিলেন পেশায় ওয়েব ডেভেলপার ফাহিম সালেহ (৩৩)। গত জানুয়ারিতে নাইজেরিয়ায় ‘গোকাডা’ নামের কোম্পানিটি সরকারি নিষেধাজ্ঞায় পড়ে।

error: Content is protected !!