সখীপুরে মেয়েকে ধর্ষকদের হাতে তুলে দেওয়া সেই মা সহ ৩ জন গ্রেপ্তার

সখীপুরে ৩২ বছর বয়সী এক গৃহবধূ গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন।
এদিকে ধর্ষণে সহযোগিতা করায় ওই গৃহবধূর মা অজুফা খাতুন ও ধর্ষক সাবেক দুই স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
মঙ্গলবার রাতে ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে মা সহ ছয়জনকে আসামি করে সখীপুর থানায় মামলা করেন। সখীপুর থানা পুলিশ রাতেই তিনজনকে গ্রেপ্তার করে।
বুধবার সকালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্যে গৃহবধূকে টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
গ্রেপ্তারকৃত আবদুল কাদেরের বাড়ি পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডে এবং আবদুর রহমানের বাড়ি উপজেলার কচুয়া গ্রামে।
পুলিশ জানায়, গত সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে মা অজুফা খাতুন তার মেয়েকে কবিরাজ বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে উপজেলার কীর্ত্তণখোলা ধুমখালি বেইলি ব্রিজের কাছে নিয়ে যায়।
সেখানে মোটরসাইকেলযোগে হেলমেটপড়া দুই যুবক আসলে মা কৌশলে মেয়েকে তাদের হাতে তুলে দেন।
পরে তাকে পৌর শহরের একটি পরিত্যক্ত দোকান ঘরে আটকে রেখে তার সাবেক দুই স্বামী আবদুল কাদের ও আবদুর রহমানসহ পাঁচজন মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।
একপর্যায়ে ওই গৃহবধূ অসুস্থ হয়ে পড়লে ধর্ষকরা তাকে রেখে পালিয়ে যায়। রাত একটার দিকে ঐ গৃহবধূ পাশের বাড়িতে আশ্রয় নেওয়ার পর বর্তমান স্বামীকে খরব দিলে সে স্ত্রীকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যান।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সখীপুর থানার ওসি (তদন্ত) এএইচএম লুৎফুল কবির বলেন, গৃহবধূর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ধর্ষণে সহযোগিতা করায় মা অজুফাকে এবং সাবেক দুই স্বামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।
তথ্য ও ছবিঃ সখীপুর বার্তা

error: Content is protected !!