এমন মানবিক পুলিশ দেখেনি কেউ কোনদিন…!!!

পুলিশ মানেই রুক্ষ মুখ, নীল পোশাক আর লাঠিপেটা করার যন্ত্র নয়, পুলিশের কঠোর বহিরঙ্গের আড়ালে নরম একটা মন আছে। যা আগে কখনোই এমনভাবে কারো চোখে পড়েনি। সেই ধারনার শাখা প্রশাখা ছড়াতে শুরু করেছে টাঙ্গাইলের প্রতিটি অঞ্চলে। দেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেওবার পর তা আরও স্পষ্ট হয়ে উঠছে। মানবিক পুলিশের আচরনে পুলিশের প্রশংসা এখন মানুষের মুখে মুখে।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে চলছে সাধারণ ছুটি কিন্তু পুলিশ সদস্যদের কোন ছুটি নেই। নেই কোন স্বস্তি। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে দিন রাত কাজ করার পাশাপাশি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাসহ সকল শ্রেনীর মানুষের জন্য সব রকমের কাজ করছেন পুলিশ সদস্যরা। সাধারণ মানুষের যাতে কষ্ট না হয় সে জন্য ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন পুলিশ সদস্যরা।

সাধারণ মানুষের ঘরে থাকা নিশ্চিত করার পাশাপাশি পুলিশের নিরলস প্রচেষ্টার যেন শেষ নেই। প্রত্যন্ত অঞ্চলে, সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে লকডাউন নিশ্চিত করতে রাত্রীকালীন চেকপোস্ট বসিয়েছে পুলিশ। পাশাপাশি করোনা উপসর্গ নিয়ে কেউ মারা গেলে এগিয়ে যাচ্ছে না সাধারণ মানুষ ফলে পুলিশই পালন করে যাচ্ছে পরিবার পরিজনদের ভূমিকা। নিজস্ব তত্ত্বাবধানে জানাজা নামাজের পাশাপাশি আক্রান্ত এলাকাগুলোতে খাবার সরবরাহ বজায় রাখতে বাংলাদেশ পুলিশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। সরকারি হিসাব অনুযায়ী সেবা প্রদান করতে গিয়ে এখনো প্রায় তিন শতাধিক পুলিশ কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। সচেতন জনগণের পাশাপাশি সাধারণ মানুষ মনে করেন দেশের দুঃসময়ে বাংলাদেশ পুলিশ যে ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে তা অনস্বীকার্য।

error: Content is protected !!